আজ চট্টগ্রামে জহুর আহমেদ স্টেডিয়ামে উইন্ডিজ দলকে উড়িয়ে দিয়ে দ্বিতীয়বারের মতো বাংলাওয়াশ করলো টাইগাররা। মিরপুরে সিরিজের প্রথম দু ম্যাচ সহজে জয় লাভ করে ফুরফুরে মেজাজে ছিল টাইগাররা। অত:পর শেষ ওয়ানডে ম্যাচে উইন্ডিজকে ১২০ রানের বিশাল ব্যবধানে হারিয়ে দীর্ঘ ১১ বছর পরে উইন্ডিজ দলকে আবারো বাংলাওয়াশ করে সাকিব-তামিম বাহিনী।

ফিক্সিং ইস্যুতে আইসিসির এক বছর নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে এক বছর পরে মাঠে ফিরেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। উইন্ডিজ সিরিজ দিয়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফেরেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান।

মিরপুর শেরে বাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়ামে উইন্ডিজের বিপক্ষে প্রথম ওয়ানডে ম্যাচে ৭.২ ওভার হাত ঘুরিয়ে ৮ রান খরচায় তুলে নেন মুল্যবান ৪টি উইকেট। ব্যাট হাতে করেন ৩১ বলে ১৯ রান। প্রথম ওয়ানডে ম্যাচেই নির্বাচিত হন ম্যান অব দ্যা ম্যাচ।

দ্বিতীয় ওয়ানডে ম্যাচে ব্যাট হাতে ৪টি চারের সাহায্যে ৫০ বলে করেন ৪৩ রান। বল হাতে ১০ ওভারে ৩০ রান খরচে ২টি উইকেট সংগ্রহ করেন। ব্যাট বল দুটোতেই সমানভাবে ধারাবাহিক ছিলেন বিশ্ব সেরা এই তারকা অলরাউন্ডার। চট্টগ্রাম জহুর আহমেদ স্টেডিয়ামে উইন্ডিজ সিরিজের শেষ ও তৃতীয় ওয়ানডে ম্যাচে ৮১ বলে ৩টি চারের সাহায্যে করেন ৫১ রান। ৪.৫ ওভার বল করে ১২ রান খরচে থাকেন উইকেট শূন্য। তিন ওয়ানডে ম্যাচে মোট ১১৩ রান করেন ও ২২.১ ওভার বল করে ৬টি উইকেট।

এই সিরিজে ব্যাটে বলে অনবদ্য পারফরম্যান্স দেখিয়ে সিরিজ সেরা নির্বাচিত হোন সাকিব আল হাসান। এ নিয়ে ১৪ বারের মতো সিরিজ নির্বাচিত হওয়ার ঘটনা। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে সবচেয়ে বেশি ম্যান অব দ্যা সিরিজের খেতাব পাওয়া ক্রিকেটারদের মধ্যে সাকিব এখন তৃতীয়। নিষেধাজ্ঞার আগে সাকিবের ম্যান অব দ্যা সিরিজ খেতাব ছিল ১৩টি। প্রত্যাবর্তনে প্রথম সিরিজেই তিনি ফের অর্জন করেছেন সিরিজ সেরার খেতাব। এতে তার মোট ম্যান অব দ্যা সিরিজ খেতাব এখন ১৪টি।