পিএসজির স্বপ্নভঙ্গ, বায়ার্ন চ্যাম্পিয়ন

146

উয়েফা চ্যাম্পিয়ন লীগ ২০২০ এর ফাইনালে পিএসজিকে ১-০ গোলের ব্যবধানে হারিয়ে ৬ষ্ঠবারের মতো শিরোপা জিতলো বায়ার্ন মিউনিখ। ১১তম বারের মতো ফাইনাল খেলে এটি বায়ার্নের ৬ষ্ঠ শিরোপার বিপরীতে নিজেদের ক্লাবের ৫০ বছরের ইতিহাসে প্রথমবারের মতো ফাইনালে উঠে রানার্সআপ হয়েই সন্তুষ্ট থাকতে হয়েছে পিএসজিকে।

গত রাত ১.০০ ঘটিকার ফাইনাল নিয়ে উত্তেজনা আর রোমাঞ্চের শেষ ছিলো না। বার্সাকে ৮-২ গোলে উড়িয়ে দেওয়া বায়ার্ন চ্যাম্পিয়নলীগে একাধিক শিরোপা জেতা সহ দূর্দান্ত ফুটবল খেলে ফাইনালে উঠার বিপরীতে পিএসজি কোয়ার্টার ও সেমিফাইনালে ততটা দাপটীয় ফুটবল উপহার দিতে পারেনি, আর ফাইনালে বায়ার্ন যেমন এগিয়ে ছিলো, ফলাফলও হয়েছে তেমন।

পর্তুগালের লিবসনে শিরোপা জেতার স্বপ্ন নিয়ে দুই দলের লড়াই শুরু। টানটান উত্তেজনাপূর্ণ ফাইনালের প্রথমার্ধ কেটেছে গোলশুণ্য। দলীয় ৫৯ মিনিটে বায়ার্নের হয়ে একমাত্র গোল করেন কোমান। পিএসজির এখানেই পিছিয়ে পরা, নেইমার, এমবাপ্পে ও ডি মারিয়াদের স্বপ্নভঙ্গের বেদনা দানা বেধেছে কোমানের গোলেই। নির্ধারিত মিনিট শেষে ১-০ গোলের জয়ে ৬ষ্ঠবারের মতো শিরোপা জিতলো বায়ার্ন মিউনিখ।

মেসির ছায়া হয়ে থাকতে না হওয়া নেইমার বার্সা ছেড়ে শেষমেষ পিএসজিতে ঠিকানা গড়লেও শিরোপা জয়ের স্বাদ আর পাওয়া হলো না, বায়ার্নের গতিশীল দূর্দান্ত ফুটবলের কাছে হার মানতেই হয়েছে।

বায়ার্ন চ্যাম্পিয়নলীগের ইতিহাসে একমাত্র দল যারা অপরাজিত চ্যাম্পিয়ন হয়েছে। ১১ ম্যাচের ১১টিতেই জয় তুলে নিয়েছে বায়ার্ন। যার আর কেউ কখনো করতে পারেনি।

চলতি মৌসুমে জার্মান লিগ ও জার্মান কাপের পর চ্যাম্পিয়ন লীগ। তিন শিরোপার তিনটিতেই জয়ের মাধ্যমে নিজেদের ইতিহাসে দ্বিতীয়বারের মতো ট্রেবল (ত্রিমুকুট) জিতলো বায়ার্ন। এর আগে ২০১৩ সালেও ত্রিমুকুট জিতেছিল বায়ার্ন। ইউরোপের দলগুলোর মধ্যে বায়ার্ন ছাড়া একমাত্র বার্সেলোনারই আছে ত্রিমুকুট জয়ের রেকর্ড। পিএসজির সামনেও ছিলো ট্রেবল জেতার হাতছানি, কিন্তু ফাইনাল পরাজয়ে ট্রেবল জেতা হয়নি।